top of page
  • Writer's pictureamlan

ঠিক তার পরের দিন

সিনে বিশ্বে ‘লিঞ্চিয়ান’ টার্ম টা এখন ভীষণ গুরুত্ববহ । ডেভিড কিথ লিঞ্চের সিনেমা মানেই থাকা-না- থাকার কূহকী খেলা, পরাবাস্তবহীন ইমেজ যার মধ্যে দিয়ে দর্শক আবিষ্কার করে নেবেন সিনেমার এক নিজস্ব স্বর।

তাঁর ধারার সিনেমাকে লিঞ্চিয়ান সিনেমা বলেই ডাকা হয়ে থাকে। অক্সফোর্ড অভিধানেও জায়গা পেয়েছে শব্দটা। ঠিক তার পরের দিন এর ট্রিটমেন্টে আমাদের অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে সমগ্র সিনে পৃথিবীর এই নাগরিকের নির্দেশিত বিভিন্ন ফিল্ম।

ঠিক তার পরের দিন এ দয়িত্রী রয়েছেন আধো ঘুমে আধো জেগে। ভালো করে লক্ষ করলে দেখা যাবে কল্পনার মধ্যে গিয়েও উনি কিন্তু বাস্তবের মাটিটাকেকিছুতেই হারাচ্ছেন না। কখনও মনে হয় না এগুলো আকাশকুসুম।এটা হচ্ছে মাটিতে রোপণ করা ফুল যে আকাশের দিকে তাকাতে জানে। কখনও সে মাটিটা ভুলছে না।

স্বীকার করতেই হবে, নষ্ট শসা পচা চালকুমড়োর মতো অসুখী দাম্পত্য থেকে বেরিয়ে নতুন আকাশের নীচে দাঁড়ানোর সুযোগ মেয়েদেরকে দিয়েছে বিবাহবিচ্ছেদই।

আধুনিক সময়ে নারী-পুরুষের দাম্পত্য যেন সরু সুতোর বন্ধন, কিংবা কাচের তৈজস, ছিন্নসম্ভব ও ভঙ্গুরপ্রবণ। বাঙালি জীবনেও ঘনিয়ে উঠেছে বিবাহবিচ্ছেদের সমাধান। চারদিকে নিঃশব্দ ভাঙনে স্পষ্ট হচ্ছে সমাধান ও সংকট।

এই ভাঙন তো কেবল দুটি নারী-পুরুষের নয়, তার লগ্ন আছে সমাজবাস্তবতায়। ১৯৫৫ সালে চালু হয়েছে বিবাহবিচ্ছেদ আইন। সম্পর্কের ভাঙনে তুলনায় বেশি ক্ষতিগ্রস্ত নারী। লিঙ্গ-অসাম্যের বিরুদ্ধে নারীর লড়াই রাষ্ট্রের মান্যতা পায়। গঠিত হয় মহিলা কমিশনও।

বাংলা উপন্যাসে বা ফিল্মে ধারাবাহিক চলনের সঙ্গে ঠিক তার পরের দিনের ব্যাখ্যা ও বিষাদ যেন ওতপ্রোত এই শর্ট ফিল্মে। বিবাহবিচ্ছেদের আখ্যানটি তত্ত্ব ও তথ্যের ভারে নুয়ে পড়েনি একটুও। হয়ে উঠেছে একটি স্বতন্ত্র আখ্যান।যদিও, আমাদের পাঠ্যক্রমে মানবীবিদ্যার সংযোজন বেশি দিনের নয়। কিন্তু, সাহিত্যের পৃষ্ঠায় বা ফিল্মে নারী নিজের মহিমায় হয়ে উঠেছে স্বাতন্ত্র্যময়ী।

ঠিক তার পরের দিন বাস্তব কল্পনার দোলাচল। প্রয়াসম ভিস্যুয়াল বেসিকস এর ঠিক তার পরের দিন, ডেভিড লিঞ্চ, এর প্রতি আমাদের একটি বিনম্র শ্রদ্ধা।

ঠিক তার পরের দিনের ট্রেলার দেখতে ক্লিক করুন এই লিঙ্কে https://youtu.be/6SN_BO8zLuE

127 views0 comments

Related Posts

See All

Mucize

Comments


bottom of page